• ঢাকা
  • শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১

Advertise your products here

  1. শিক্ষা

অভিনেত্রী শায়লা সাথীকে শ্লীলতাহানি : কারাগারে অভিযুক্ত জবি ছাত্র


দৈনিক পুনরুত্থান ; প্রকাশিত: শুক্রবার, ২০ অক্টোবর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ০৯:০৩ পিএম
অভিনেত্রী_শায়লা_সাথীকে_শ্লীলতাহানি_কারাগারে_অভিযুক্ত_জবি_ছাত্র
ফাইল ফুটেজ

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) ছোট পর্দার অভিনেত্রী শায়লা সাথীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে কোতোয়ালি থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের দর্শন বিভাগের শিক্ষার্থী মেহেদী হাসান সৈকতকে মামলার আসামি করা হয়।

শুক্রবার (২০ অক্টোবর) ওই মামলায় অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে হাজির করা হয়। এরপর তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপ-পরিদর্শক হাসান মাতুব্বর। শুনানি শেষে ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সাইফুল ইসলামের আদালত আসামি সৈকতকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

অভিনেত্রী শায়লা সাথীকে শ্লীলতাহানি : কারাগারে অভিযুক্ত জবি ছাত্র

মামলার বিষয়ে হাসান মাতুব্বর বলেন, আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলে মামলা গ্রহণ করি। পরে আইন অনুযায়ী কোর্টে হাজির করি আসামিকে। মামলার এজাহার দেখে সবকিছু বিবেচনা করে কোর্ট আসামি সৈকতকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

মামলার এজাহারে ভুক্তভোগী অভিনেত্রী শায়লা সাথী বলেন, আসামি সৈকত ২০১৯-২০২০ সেশনে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পরে একদিন ক্যাম্পাসে আমার সামনে এসে নিজের পরিচয় দিয়ে কথা বলার চেষ্টা করেন। আমি তার কথার উত্তর না দিয়ে নিজের ক্লাসে চলে যাই। এরপর আসামি সৈকত আমার জুনিয়র হওয়া স্বত্বেও বিভিন্ন সময় মোবাইলে ও ফেসবুকে বিভিন্নভাবে ঘনিষ্ঠ হওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু আমি তাকে কোনো পাত্তা দেই নাই।

অভিনেত্রী শায়লা সাথীকে শ্লীলতাহানি : কারাগারে অভিযুক্ত জবি ছাত্র 

এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৯ অক্টোবর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবস উপলক্ষ্যে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করার জন্য দুপুরে ক্যাম্পাসে আসি। ক্যাম্পাসের শান্ত চত্ত্বরে অবস্থানকালে আসামি সৈকত পূর্বপরিকল্পিতভাবে আমার শ্লীলতাহানি করে চলে যায়। পরে ঘটনার বিষয়ে আমি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরকে লিখিতভাবে অভিযোগ দেই।

প্রক্টরের নির্দেশে কোতয়ালী থানা পুলিশ জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে আসামিকে আটক করেন। আটকের পরে সে পুলিশের সামনে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে। জবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আসামি মেহেদী হাসান সৈকত, এস এম আকতার হোসাইনের অনুসারী কর্মী বলে জানা গেছে।

 

পুনরুত্থান/সালেম/সাকিব/এসআর

দৈনিক পুনরুত্থান / নিজস্ব প্রতিবেদক

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন