• ঢাকা
  • রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১

Advertise your products here

  1. সারাদেশ

উন্নয়ন বঞ্চিত বরিশাল-৬আসনে হাফিজ মল্লিকের জয় জয়জয়কার


দৈনিক পুনরুত্থান ; প্রকাশিত: রবিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ০৮:০৫ পিএম
উন্নয়ন_বঞ্চিত_বরিশাল-৬আসনে_হাফিজ_মল্লিকের_জয়_জয়জয়কার
ফাইল ফুটেজ

আগা বাখের খানের স্মৃতি বিজড়িত বার আউলিয়াদের এই পূর্ণভূমি বরিশাল-৬ আসনের (বাকেরগঞ্জ) ১৯৯৬ সালে বাকেরগঞ্জের সাবেক সংসদ সদস্য মহরম আলহাজ্ব সৈয়দ মাসুদ রেজার শাসন আমলে কোন প্রকারের অনিয়ম,দুর্নীতির কালিমা তাকে কখনোই তাকে স্পর্শ করতে পারে নায়।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একমাত্র বিশ্বস্ততার প্রতিক বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের বরিশাল-৬ আসনেন (বাকেরগঞ্জ) দীর্ঘ ২২ টি বছর পর বহু আন্দোলন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে অর্জিত হয় আওয়ামী লীগের এই ঘাটিটির সকলের আকাঙ্ক্ষার প্রতীক নৌকা।কারণ হিসেবে জানা যায়, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাও অবগত আছেন যে, সারা বাংলাদেশে যখন উন্নয়নের মহাসড়কে বাসছিল ঠিক তখনই আমাদের বরিশাল-৬ আসনটি ছিল উন্নয়ন বঞ্চিত, সুবিধা বঞ্চিত, অবহেলিত এবং একটি জন বিপর্যস্ত এলাকায় হিসেবে সকলের নিকট শনাক্ত হয়েছে।

তাই মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের এই উন্নয়ন বঞ্চিত বাকেরগঞ্জ বাসির কষ্ট লাগবের কথা চিন্তা করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বরিশাল-৬আসনে (বাকেরগঞ্জ) বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সম্মানিত সদস্য ও ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্ট এর আজীবন সদস্য আলহাজ্ব মেজর জেনারেল (অবঃ) আব্দুল হাফিজ মল্লিক পিএসসিকে চতুর্থবারের মতো মনোনয়ন প্রদান করেন।আওয়ামী লীগের এই দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন পাওয়ার পর,পর থেকে বাকেরগঞ্জ উপজেলার ১৪ টি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় দলীয় নেতা কর্মীরা তাদের বহুল প্রতীক্ষিত নৌকা প্রতীক পেয়ে আনন্দ মিছিল ও মিষ্টি বিতরণ করেন।

আমি মনোনয়ন প্রাপ্ত এই নেতা দলীয় মনোনয়ন পাওয়ার পর পর থেকেই তিনি ছুটি যান ১৪ টি ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চলে। এসময় দলীয় নেতাকর্মীরা তাদের প্রাণপ্রিয় নেতাকে কাছে পেয়ে আবেগ আপ্লুত হয়ে পড়েন। এ বিষয়ে তাহার নিকট জানতে চাইলে তিনি জানান, জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমাদেরকে দিয়েছে একটি স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ।আর বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী হাসিনা আমাদেরকে দিয়েছে একটি উন্নয়নশীল বাংলাদেশ। তিনি বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কখনো জনগণকে মিথ্যা আশ্বাস দেন না, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অঙ্গীকার ছিল ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার, আজ তা বাস্তবায়ন হয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী অঙ্গীকার করেছেন আগামীতে বাংলাদেশ হবে স্মার্ট বাংলাদেশ, তাই স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে স্মার্ট মানুষের কোন বিকল্প নেই।

বাংলাদেশ গড়ার লক্ষে স্মার্ট মানুষের কোন বিকল্প নেই। সেবা ও উন্নতির দক্ষ রুপকার, উন্নয়নে উদ্ভাবনে স্থানীয় সরকার’ গ্ৰাম হবে শহর, এ প্রতিপাদ্য বিষয় নিয়ে বাকেরগঞ্জ উপজেলার ইউনিয়ন ১৪ টি ইউনিয়ন পরিষদকে ঢেলে সাজিয়ে করা হবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষিত স্মার্ট ইউনিয়ন পরিষদ বলে জানিয়েছেন,বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সম্মানিত সদস্য ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাস্ট এর আজীবন সদস্য আলহাজ্ব মেজর জেনারেল অবঃ আব্দুল হাফিজ মল্লিক। তিনি আরো জানান,আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন হবে একটি প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক নির্বাচন।কেন্দ্রীয় এই নেতা বলেন,বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশকে একটি উন্নয়নের মহাসড়কে দেখালেও বর্তমানে বাকেরগঞ্জ-৬ আসনের আওয়ামী লীগের কোন দলীয় সংসদ সদস্য না থাকার কারণে উপজেলার ১৪ টি ইউনিয়ন সহ একটি পৌরসভায় আশানুরূপভাবে কোন উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি বলে জানান।

গত ২২ টি বছর যাবৎ উন্নায়ন থেকে সবচেয়ে পিছিয়ে ছিলো এ আসনটি। এলাকার উন্নায়নে গত ২২ বছর বরিশাল-১২৪,বাকেরগঞ্জ-৬আসনে আওয়ামী লীগের কোন দলীয় এমপি না থাকার কারণে এই আসনটিতে আশানুরুপ কোন ভুমিকা না রাখায় বাকেরগঞ্জ উপজেলার সাধারণ মানুষ রয়েছেন দীর্ঘদিন যাবৎ উন্নায়ন বঞ্চিত, অবহেলিত ও নির্যাতিত হয় বলে আভিযোগ খোদ স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা। সাবেক সংসদ মরহুম আলহাজ্জ সৈয়দ মাসুদ রেজার একান্ত প্রচেষ্ঠায় ১৯৯৬-২০০১ তৎকালীন সময়ে বাকেরগঞ্জ উপজেলায় উন্নায়নের জোয়ার বইলেও ২০০৯ সালে ক্ষমতার আসার পর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ১৬ বছর ক্ষমতায় থাকলেও এখানে আওয়ামী লীগের এমপি না থাকার কারণে এতে করে সংসদীয় এলাকার মানুষের মাঝে চরম ক্ষোভ আর হতাশা বিরাজ করছে। এছাড়া প্রকল্পের অভাবে নেতাকর্মীরা কোনো কাজের টেন্ডার পাননি। এ ক্ষেত্রে বর্তমান সংসদ নাসরীন জাহান রত্নার উদ্যেগের অভাব ও উন্নায়নের বিষয়ে মনযোগী না হওয়াকেই দায়ী করছেন স্থানীয় নেতাকর্মিরা।

বিষয়টিককে মোক্ষম অস্ত্র হিসেবে ব্যাবহার করে আগামি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাকেরগঞ্জ উপজেলার সর্বাস্তরের জনগন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেমোরিয়াল ট্রাস্টের আজীবন সদস্য আলহাজ্ব মেজর জেনারেল অবঃ আবদুল হাফিজ মল্লিককে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে আওয়ামী লীগের সকল প্রার্থীর চেয়ে সততা, আর্দশতা, বিনয়ীতা, দক্ষতা ও যোগ্যতার মাপকাঠিতে প্রধান মন্ত্রীর নিকট এগিয়ে আছেন এবং সরেজমিনেও জানাযায় সবার জনপ্রিতার সবার শীর্ষে রেয়েছেন এই কেন্দ্রীয় নেতা।বর্ষিয়ান এক কেন্দ্রীয় নেতা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার একান্ত আস্থাভাজন ও বিশ্বস্ত হওয়ার কারণে ২০০৯ সালে থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে তিনবার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেলেও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার আস্থার প্রতি আনুগত্য জানিয়ে ছেড়ে দিতে বাধ্য হন এই আসনটি।

তবে একাধিক বিশ্বাস সূত্র নিশ্চিত করেছেন জোঠ হোক কিংবা মহাজোট হোক বরিশাল-৬ আসনটিতে আলহাজ্ব মেজর জেনারেল (অবঃ) আব্দুল হাফিজ মল্লিক শেষ পর্যন্ত নির্বাচনী মাঠে প্রতিদ্বন্দিতা করবেন এমনটা প্রত্যাশা করছে দল মত নির্বিশেষে বাকেরগঞ্জ উপজেলার সর্বস্তরের জনগণ। এমনকি আওয়ামী লীগের এই দুর্গের আসনটির আওয়ামী লীগের সকল নেতিকর্মিদের ধারনা আগামি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি বিপুল ভোটে এমপি নির্বাচিত হবেন এবং তিনি বিপুল ভোটে এমপি নির্বাচিত হলে বাকেরগঞ্জ বাসীর সকলেরই ধারণা তাহার শিক্ষা,দীক্ষা,কর্মদক্ষতা, সততা আদর্শতা সর্বোপরি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একান্ত বিশ্বস্ত লোক হওয়ার কারণে তিনি মন্ত্রী পরিষদের একটি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পাবেন বলে এমন প্রত্যাশা সবার। তিনি মন্ত্রী হলে তিনি কেবল বাকেরগঞ্জ নয়, বৃহত্তর বরিশাল বিভাগের উন্নায়নের জোয়ার তার দ্বারাই সম্ভাব হবে।

এমন কি সেই আগা বাকের খানের সৃতি বিজারিত বার আউলিয়াদের পূর্ন ভুমি বাকেরগঞ্জকে জেলা হিসেবে বাস্তবায়ন করবেন বলে প্রত্যয় ব্যক্ত করে জানান এই কেন্দ্রীয় এই বর্ষিয়ান নেতা।এমন কি হেভিওয়েট আওয়ামী লীগের এই প্রার্থী জানান, আমাকে মহান রাব্বুল আলামিন যতদিন নেক হায়াত দিয়েছেন ততদিন আমি এই উন্নয়ন বঞ্চিত বাকেরগঞ্জ বাসির দোয়া ও সমর্থন নিয়ে আগামী ৭ই জানুয়ারির ২০২৪ সালের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর একমাত্র আস্থার প্রতিক বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টের আজীবন সদস্য আলহাজ্ব মেজর জেনারেল (অবঃ) আব্দুল হাফিজ মল্লিক পিএসসিকে দলমত নির্বিশরষে আমাকে বিপুল ভোটে দিয়ে নির্বাচিত করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্মার্ট বাংলাদেশের বির্নিমানে অংশ গ্রহন করে আমরা একটি স্মার্ট বাকেরগঞ্জ হিসেবর গড়ে তুলব ইনশাআল্লাহ।

জয় পরাজয়ের বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে কেন্দ্রীয় এই নেতার নিকট প্রশ্ন করা হলে তিনি সাংবাদিকদের জানান,আপনারা নিশ্চয়ই অবগত আছেন যে,আমি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সাবেক সুনামের দায়িত্ব পালন করে আসছে। আর তখনকার সময়ে আমি যখনই শুনেছি,আমার প্রিয় বরিশালবাসী থেকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে যোগদানের উদ্দেশ্যে আমার কাছে এসেছে আমি তা সাধ্যমত চেষ্টা করে হাজার হাজার বেকার যুবকদের কর্মসংস্থান দিয়ে বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্তি দিয়েছি ফিছাবিল্লাহ হিসেবে। আরেক জবাবে আওয়ামী লীগের এই হেভিওয়েট প্রার্থী বলেন, আগামী , ৭ই জানুয়ারি আমাদের স্বাধীনতার প্রতিক আছে এবং থাকবে এবং ইনশাআল্লাহ পিপুল ভোটে জয়লাভ করবে। মহান রাব্বুল আলামিনের দোয়ায় কোন অপশক্তি তাহা বানচাল করতে পারবে না ইনশাআল্লাহ।

হেভিওয়েট আওয়ামী লীগের এই প্রার্থী আরো বলেন, দীর্ঘ ১৫ বছরের যাবৎ জাতীয় পার্টির এই দম্পতি বৃহত্তর বাকেরগঞ্জ উপজেলার ১৪ টি ইউনিয়েন ও একটি পৌরসভা নিয়ে গঠিত। কিন্তু আধুনিক বাকেরগঞ্জের পৌর মেয়র লোকমান হোসেন ডাকুয়ার একান্ত প্রচেষ্টায় স্মার্ট বাকেরগঞ্জ পৌরসভা গঠিত হলেও ১৪ টি ইউনিয়নে আশানুরূপ কিছু কাজ হলেও তা পার্সেন্টেজের মাধ্যমে করাতে হয়েছে।তাই বাকেরগঞ্জবাসীর সর্বস্তরের জনগণের দাবী,কোন দল নয়,মত নয় আমাদের দীর্ঘ ২২ একটি বছরের বিভিন্ন আন্দোলন ও সংগ্রামের মাধ্যমে অর্জিত এই নৌকা মার্কা। এবং এই নৌকা মার্কার মাঝি হিসেবে পাঠিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা পরিষদের সম্মানিত সদস্য ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টের আজীবন সদস্য ইঞ্জিনিয়ার আলহাজ্ব মেজর জেনারেল (অবঃ) আব্দুল হাফিজ মল্লিক পি এস সি। 

নাম প্রকাশ করার না স্বার্থে বিভিন্ন জামাত বিএনপি নেতারা জানান,মেজর জেনারেল (অবঃ) আব্দুল হাফিজ স্যার একজন সৎ, নির্ভীক ও পরোপকারী ব্যক্তি। তারা আরো জানান, এই ব্যক্তি যদি এমপি নির্বাচিত হতে পারে, তাহলে তিনি মন্ত্রিত্ব পেয়ে বাকেরগঞ্জ উপজেলাকে তিলোত্তমা উপজেলা হিসেবে গড়ে তুলবে। এমন কি তিনি তার নির্বাচনী এলাকায় তাকে যদি মহান আল্লাহতালা পাঁচটি বছর বাঁচতে দেয় তাহলে তিনি আমাদের এই পূর্বের বাকেরগঞ্জ জেলাকে পুনরায় বাকেরগঞ্জ জেলায় রূপান্তরিত করবে বলে প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

দৈনিক পুনরুত্থান / নিজস্ব প্রতিবেদক

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন