• ঢাকা
  • রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

Advertise your products here

  1. সারাদেশ

পেকুয়ায় জল্পনা কল্পনা অবসান ঘটিয়ে জব্দকৃত বালু মিশিয়ে দিলেন বন বিভাগ


দৈনিক পুনরুত্থান ; প্রকাশিত: বৃহস্পতিবার, ০৯ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, ১১:০৮ পিএম
পেকুয়ায় জল্পনা কল্পনা অবসান ঘটিয়ে জব্দকৃত বালু মিশিয়ে দিলেন বন বিভাগ
ফাইল ফুটেজ

কক্সবাজারের পেকুয়ার মধুখালীর উপরে চট্রগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের বারবাকিয়া রেঞ্জের আওতাধীন  টৈটং বিটের মধুখালীর উপরে রিজার্ভ হারবাং মৌজার আরাতুল্লা ও নকশা ফুল্লার গহীন অরন্যে বালি দস্যু কতৃক উত্তোলিত প্রায় ৪লক্ষ ৬হাজার ঘণফুট প্রকৃতির সাথে মিশিয়ে  দেলোয়ার হোসেন  অভিযান শুরু করেছে বনবিভাগ।

(০৮ মে) সকাল ৬টার দিকে এ অভিযান শুরু হয়, অভিযানে নেতৃত্ব দেন চট্রগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের সহকারী বনসংরক্ষক দেলোয়ার  হোসেন।  বনবিভাগ ও স্থানীয় সূত্রে জানায়,সংরক্ষিত বনে ৫/৪ বছর আগে মেশিন দিয়ে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করেছিল বালি দস্যুরা।

২০২৩সালের ২৫ মে  ওই বালি জব্দ করে ইউ. ডি. আর মামলা দায়ের করেন টৈইটং বনবিট কর্মকর্তা জমির উদ্দিন । চলতি বছরে বালি দস্যুরা এ বালি নিলামের নামে বের করার জন্য  প্রশাসনের কাছে করে বিভিন্নভাবে তদবির করে। বনবিভাগ ও মিডিয়ার তথৎপরতায় বন্ধ হয়ে যায় নিলাম কার্যক্রম। চলতি বছরের ৩১ মার্চ ওই বালি প্রকৃতির সাথে মিশে দেওয়ার জন্য আদালতের কাছে আবেদন করেন বারবাকিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা হাবিবুল হক।

আদালত তাহার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ৮এপ্রিলের মধ্যে বালি পরিমাপ ও অবস্থান নিশ্চিত  করে প্রতিবেদন দেওয়ার জন্য পেকুয়া নির্বাহী কর্মকর্তাকে নির্দেশনা প্রদান করেন। ধার্য তারিখে ইউএনও প্রতিবেদন না দেওয়া ও কোন সময় প্রার্থনা না করায়,রেঞ্জ কর্মকর্তার আবেদনের ধারাবাহিতায়, ধার্য তারিখ হতে৩০ দিনের মধ্য বালি নিচু স্থানে ভরাট করে গাছ রোপন করে আদালতে ভিডিও চিত্র সহ প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন বারবাকিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা  হাবিবুল হককে।

বারবাকিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা হাবিবুল হক বলেন, আদালতের আদেশ ও বিভাগীয় বন কর্মকর্তার নির্দেশে এই বালু গুলো মিলিয়ে দেওয়ার প্রথম ধাপের কাজ শুরু করছি। বালুদস্যূ যে হোক না কেন এবং বালু পাহাড় সংরক্ষিত বনে অবৈধভাবে অনুপ্রবেশের যেকোনো ধরনের পাঁইতারা  কঠোর হাতে দমন করা হবে। 

চট্রগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের সহকারী বনসংরক্ষক দেলোয়ার হোসেন বলেন, যে বালি আমরা জব্দ করেছিলাম সেই জব্দ কতৃক বালি আমরা স্পটেই যেন ভরাট করে সেখানে বিভিন্ন বনজ্য বৃক্ষ রোপণ করার মাধ্যমে ভিডিও ধারণ করে একটি  প্রতিবেদন দাখিল করি। আদালতের সেই আদেশকে শিরোধার্য করে বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মহোদয়ের নির্দেশনা মোতাবেক আমরা চট্টগ্রাম দক্ষিণ বনবিভাগের বিভিন্ন রেঞ্জের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা এখানে উপস্থিত হয়েছি।

দৈনিক পুনরুত্থান / স্টাফ রিপোর্টার

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন