• ঢাকা
  • রবিবার, ২১ এপ্রিল ২০২৪, ৭ বৈশাখ ১৪৩১

Advertise your products here

  1. স্বাস্থ্য

দেশে অবৈধ ফার্মেসি রয়েছে এক লাখেরও বেশি


দৈনিক পুনরুত্থান ; প্রকাশিত: শুক্রবার, ০৬ জানুয়ারী, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১১:৩১ পিএম
দেশে-অবৈধ-ফার্মেসি-রয়েছে-এক-লাখেরও-বেশি
ফাইল ফুটেজ

দেশে দেড় লাখের মতো নিবন্ধিত ফার্মেসি আছে। কিন্তু এর বাইরে এক লাখের বেশি রয়েছে অবৈধ ফার্মেসি। শুধু তাই নয় নিয়ম-নীতির বাইরে গিয়ে রেজিস্টার্ড চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র তারা ছাড়াই যত্রতত্র অ্যান্টিবায়োটিকের মতো ওষুধ বিক্রি করছেন। অনিয়ন্ত্রিত ওষুধ সেবনে ওষুধের অকার্যকরিতা বাড়ছে বা মাল্টি ড্রাগ রেজিসট্যান্স।

ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল ইউসুফ আলী শুক্রবার (৬ জানুয়ারি ২০২৩)  লাজ ফার্মার ৫০ বছরপূর্তি অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন। ইউসুফ আলী আরও বলেন, ওষুধের যৌক্তিক ব্যবহার নিশ্চিতে সারা দেশের ফার্মেসিগুলো আধুনিকায়নের উদ্যোগ এবং ব্যবস্থাপত্র ছাড়া বিক্রি বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সরকার। একইসঙ্গে ঔষধ আইন বাস্তবায়ন হচ্ছে অনিবন্ধিত ফার্মেসি বন্ধে। তিনি আরও বলেন, যত্রতত্র ফার্মেসি গড়ে ওঠা অ্যান্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহারের অন্যতম কারণ।

যত ফার্মেসি রয়েছে বাংলাদেশে, এরকম আর কোনো দেশেই নেই। এক সময় ওষুধ আনতে হত কয়েক কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে, এখন তো হাত বাড়ালেই ফার্মেসি। কাজ চলছে অবৈধ ও অনিবন্ধিত ফার্মেসি বন্ধে, শুরু হবে আইন পাস হলেই অভিযান। ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেছিলেন, এখন অ্যান্টিবায়োটিক দেওয়া হচ্ছে মাথা ব্যথার মতো সাধারণ সমস্যাতেও। ইচ্ছেমতো তা কিনতে পারছেন মানুষ।

বিক্রিতে নিয়ম মানছে না ফার্মেমিগুলো। ফলে কার্যকারিতা হারাচ্ছে অ্যান্টিবায়োটিকের। এমনকি যে অ্যান্টিবায়োটিক আইসিইউতে দেওয়া হয়, বর্তমানে সেটিও কাজে আসছে না। এ কারণে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে ব্যবস্থাপত্র ছাড়া ওষুধ না দেওয়ার। ইতোমধ্যেই এ ব্যাপারে সম্মতি দিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়। আশা করি পাস হবে আগামী সংসদ অধিবেশনে। একইসঙ্গে বন্ধ করে দেওয়া হবে অবৈধ ফার্মাসিগুলো।

উন্নত দেশগুলোতে ফার্মেসিগুলো একই রকম হলেও, আমাদের দেশে ফার্মেসির পাশাপাশি চলে অন্যান্য পণ্যও। তাই মাননিয়ন্ত্রণ করতে পারে ও লাজ ফার্মার মতো মডেল ফার্মেসি ছাড়া বাকিগুলো বন্ধ করে দেওয়া হবে। শুরু হয়েছে সেই প্রক্রিয়া। তিনি আরও বলেন, দুই কিলোমিটার পাড়ি দিয়ে ওষুধ আনতে হয় ইন্দোনেশিয়ার মতো দেশে। কিন্তু এদেশে হাতের কাছেই মেলে ওষুধ। ব্যবস্থা নিতে পারছি না আইনের দুর্বলতার কারণে। ব্যবস্থা নেওয়া সহজ হবে নতুন আইন হলে।

 

পুনরুত্থান/সালেম/সাকিব/এসআর

দৈনিক পুনরুত্থান / স্টাফ রিপোর্টার

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন