• ঢাকা
  • শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

Advertise your products here

  1. সারাদেশ

তিস্তা কিন্ডারগার্টেনের নতুন পরিচালক হিসাবে দায়িত্ব পেলেন মুরাজিন মোমিন


দৈনিক পুনরুত্থান ; প্রকাশিত: মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ০৬:১৩ পিএম
তিস্তা_কিন্ডারগার্টেনের_নতুন_পরিচালক_হিসাবে_দায়িত্ব_পেলেন_মুরাজিন_মোমিন
নতুন পরিচালক মুরাজিন মোমিন

লালমনিরহাট জেলার তিস্তায় অবস্থিত ‘তিস্তা কিন্ডারগার্টেন’ স্কুলটি ১৯৯৭ সালে বিশিষ্ট শিক্ষানুরাগী মরহুম এ টি এম নজরুল ইসলান আঙ্গুর প্রতিষ্ঠা করেন। পরবর্তীতে মরহুম এ টি এম নজরুল ইসলাম আঙ্গুর সাহেবের কঠোর পরিশ্রম ও একক পরিচালনায় তিস্তা কিন্ডারগার্টেন স্কুলটি বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন এ্যান্ড প্রি- ক্যাডেট এসোসিয়েশনের আওতাভুক্ত হয়। বর্তমানে তিস্তা কিন্ডারগার্টেন স্কুলটি স্বনামধন্য এক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসাবে লালমনিরহাট জেলায় বেশ পরিচিতি লাভ করেছে। 

তিস্তা কিন্ডারগার্টেন'র নতুন পরিচালক হিসাবে দায়িত্ব পেলেন মুরাজিন মোমিন

বিগত কয়েক বছর যাবৎ স্কুলটি খ্যাতি এবং বিশ্বাসের সাথে প্রাতিষ্ঠানিক সকল কার্যক্রমের পাশাপাশি লালমনিরহাট জেলায় প্রাথমিক পর্যায়েও শীর্ষ ফলাফলের রেকর্ড তৈরি করে আসছে। প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক মরহুম এ টি এম নজরুল ইসলাম আঙ্গুর সাহেবের একনিষ্ঠ দায়িত্বের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি সাংস্কৃতিক,খেলাধুলা,কুইজ প্রতিযোগিতা সহ বিভিন্ন জাতীয় দিবসসমূহ যথাযথ মর্যাদায় উদযাপন ও কো-কারিকুলার কার্যক্রমে অগ্রগামী এবং উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে আসছে। 

আরও পড়ুন>> এসআইয়ের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার টঙ্গী পুলিশ ব্যারাক থেকে

গত ৫ই সেপ্টেম্বর ‘তিস্তা কিন্ডারগার্টেন’ এর  প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক এ টি এম নজরুল ইসলাম আঙ্গুর চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা সি এম এইচ এ ইন্তেকাল করেন। তিস্তায় তিনি বড় স্যার নামে খ্যাত ছিলেন। তার আকস্মিক মৃত্যুতে ‘তিস্তা কিন্ডারগার্টেন’ সহ এলাকার সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শোকের ছায়া নেমে আসে। 

মৃত্যু পথযাত্রী থাকা অবস্থাতেও তিনি ‘তিস্তা কিন্ডারগার্টেন’ স্কুলের সকল শিক্ষার্থী, শিক্ষক এবং স্টাফদের প্রতি সংবেদনশীল ছিলেন। প্রতিনিয়ত তিনি প্রতিষ্ঠানের খবরাখবর রাখতেন। এরই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে মারা যাওয়ার পূর্বে তিনি তারই জ্যেষ্ঠ পুত্রবধূ মুরাজিন মোমিনকে পরিচালনার দায়িত্বভার সোপর্দ করেন। 

মুরাজিন মোমিন বাংলাদেশ কিন্ডারগার্টেন এ্যান্ড প্রি-ক্যাডেট স্কুল এসোসিয়েশনেরও সহ-সভাপতি। 

মুঠোফোনে মুরাজিন মোমিনের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আব্বার মৃত্যুতে আমরা গভীরভাবে শোকাহত,মর্মাহত। ওনার রেখে যাওয়া অসমাপ্ত কাজগুলো সম্পন্ন করার দায়িত্বকে আমি গুরুদায়িত্ব হিসেবে নিয়েছি। 

সবাই দোয়া ও আশীর্বাদ করবেন যেন আমি আব্বার স্বপ্ন পূরনে নিজেকে সচেষ্ট করতে পারি এবং পরিচালক হিসেবে যাবতীয় কার্যক্রম গতিশীল রাখার পাশাপাশি প্রতিষ্ঠানটি আধুনিকায়নে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহন করতে পারি সবাই আব্বার আত্মার জন্য মাগফেরাত কামনা করবেন।

এছাড়াও তিনি বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্নের সারথী হবার জন্য দৃঢ় প্রতিজ্ঞা ব্যক্ত করেন।

 

পুনরুত্থান/সালেম/সাকিব/এসআর

দৈনিক পুনরুত্থান / উজ্জল দাস,লালমনিরহাট

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন