• ঢাকা
  • শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

Advertise your products here

  1. সারাদেশ

বিশ্ব মানচিত্রে উদ্ভাসিত বাকেরগঞ্জের কৃতি সন্তান মেজর জেনারেল (অব.) আবদুল হাফিজ মল্লিক


দৈনিক পুনরুত্থান ; প্রকাশিত: বুধবার, ০১ ফেরুয়ারী, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ০৫:২৩ পিএম
বিশ্ব-মানচিত্রে-উদ্ভাসিত-বাকেরগঞ্জের-কৃতি-সন্তান-মেজর-জেনারেল-অব-আবদুল-হাফিজ-মল্লিক
মেজর জেনারেল (অব.) আবদুল হাফিজ মল্লিক

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একান্ত আপনজন, একজন সৎ এবং বিশ্বস্ত আদর্শের শিক্ষাবিদ, রাজনীতিবিদ, সততার প্রতিক ও বিজ্ঞ প্রকৌশলীবিদ পরম শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তিত্ব আমার এবং বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা অভিভাবক ও পথপ্রদর্শন মন্ডলীর সন্মানিত ও মেজর জেনারেল (অব.) আবদুল হাফিজ মল্লিক স্যার জাতির জনক বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টের আজীবন সদস্য।

তার চারিত্রিক অমায়িক ও মাহাত্ম্য গুণাবলির দ্বারা তিনি আমাকে এমন কিছু শিক্ষাদান এবং খোঁজ খবর নিয়েয়েছেন সার্বক্ষণিক ফোনআলাপের মাধ্যমে যা আমার ভুলে কিনা কোনদিন যাওয়ার নয়। দেশপ্রেম ও কর্তব্যনিষ্ঠা, অমায়িক ব্যবহার, কঠোর পরিশ্রম আর বাকেরগঞ্জ বাসীর সাথে তার চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য ছিল সততার সঙ্গে দায়িত্ব পালন। আর বাকেরগঞ্জ বাসীর নিকট এ কারণেই তিনি সবার শ্রদ্ধা অর্জনে সমর্থ হয়েছিলেন জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব হিসেবে। বঙ্গবন্ধুর সংস্পর্শে আসেন তিনি তার চাকুরী জীবন সময়ে এবং আওয়ামী সরকারের শাষন আমলে সর্বশেষে ১৯৯৬-২০০১ সালে তিনি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মেজর জেনারেল পদে থাকিয়া তার টিম সহ যাকিনা ছিলো সবার নিকট দৃষ্টিনন্দন জাতির জনকের মাযার ও কম্পলেক্স ভবন করেছিলে।

আরও পড়ুন>> বাংলাদেশ ১৪ বছরে বদলে গেছে : প্রধানমন্ত্রী

জামাত চার দলীয় সরকার অতঃপর ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর স্যারের বর্তমান সরকারেরর মাননীয় প্রধান মন্ত্রীকে সহ স্যারকে ৫ বছর চাকুরী থাকালীন বাধ্যতামূলক অবসরের দিয়ে দুই নম্বর আসামী করে হয়রানী মাধ্যমে ষ্টীম রোলার চালানো হয় তার ওপরে। স্যার নেত্রীর সরাসরি হাত ধরেই তারপর থেকেই বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের বাকেরগঞ্জ বাসীর জন্য মাথার পায়ে ফেলে রাজনিতীতে সক্রিয়ভাবে অংশ গ্রহন করে কাজ করে যাচ্ছেন। দলীয় মনোনয়ন পেয়েও একদল বিপথগামী লোক তিনি ২০০৯,১০১৪,২০১৯ সালে পকেট ভাড়ী করা ও নিজেদের স্বর্থ হাসিলের জন্য এক ব্যাক্তি আপাদমস্তক সবাই অবগত আছেন যাকিনা বাকেরগঞ্জের বঞ্চিত হয়েও দুঃখ-কষ্ট নিয়েও তিনি পরপর তিন বার মনোনায়ন নিজের অটুট রেখেছেন মনোবল সর্বদা। তিনি গনতন্ত্র বিশ্বাসী গণতন্ত্র ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠার জন্য। তিনি কখনোই নীতি ও আদর্শের সঙ্গে আপস করেননি। কর্তব্য পালনে তিনি দেশ ও জাতির প্রতি ছিলেন বিশ্বে উজ্জল দৃষ্টান্ত রেখেছেন সৎসাহস ও সেবার মাধ্যমে।

তিনি একজন দলমত নির্বিশেষে এবং আদর্শ রাজনীতিবিদ সব কর্মীদের শ্রদ্ধাভাজন ও রাজনৈতিক নেতা। তার জীবনের ব্রত ছিল মানুষের সেবা। শত শত বেকার যুবকদের তার নিজ এলাকায় সৈনিক পদে চাকুরী দেওয়া সহ এলাকায় অসংখ্য মসজিদ-মাদ্রাসা, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তার দানে ধন্য হয়েছে। তিনি দান করেছেন আর্তমানবতায় অকৃপণ হস্তে। পরিমণ্ডল অতিক্রম করে জাতীয় রাজনীতির আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে রেখে গেছেন তিনি অবদান। মানুষ হিসেবে তিনি জনগণের একজন অমায়িক ও বিনয়ী ব্যবহার সম্পন্ন ভালোবাসা অর্জনের সমর্থ হয়েছিলেন। পরোপকার আর উদারতা এবং দানশীলতা করেছেন মহিমান্বিত তার চরিত্রকে।

অন্যান্য খবর>> ২৯ দিনে ২ কোটি ৪৬ লাখ টাকা আয় মেট্রোরেলের

এখনো একটি ধারনা বাকেরগঞ্জ বাসীর এই অবহেলিত তার দ্বারাই, বাকেরগঞ্জকে পূর্বের জেলা ঘোষনা করা উন্নায়ন বঞ্চিত সহ একটি ডিজিটাল বাকেরগঞ্জ বাংলাদেশের মানচিত্রে উপহার দিতে পারতো। স্যার একজন আদর্শ রাজনীতিবিদ তাই আমি বলব, একজন দেশের শীর্ষস্থানীয় সমাজসেবক, একজন খাঁটি দেশপ্রেমিক, জাতীর জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শ এবং একজন সৎ নিষ্ঠাবান ব্যক্তিত্ব তিনি এখনো উজ্জীবিত।তিনি আজীবন বেঁচে থাকবেন আর এ আদর্শের মূল্যবোধ ও অনুশীলনের চর্চার মাধ্যমেই বাকেরগঞ্জ প্রতিটি মানুষের কাছে। তাই আমি স্যারের মঙ্গল কামনা এবং আজীবন দীর্ঘায়ু কামনা করি।

 

পুনরুত্থান/সালেম/সাকিব/এসআর

দৈনিক পুনরুত্থান / স্টাফ রিপোর্টার

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন